সর্বশেষ সংবাদ

বিএনপির ঘুরে দাঁড়ানোর ওপর নির্ভর করছেবেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক ভবিষ্যত

ঢাকা : বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক ভবিষ্যত নিয়ে নানা রকম সমীকরণ করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। অনেকেই তার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে কোন আশার আলো দেখছেন না । তবে তাঁর রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কী হবে, সেটি নিয়ে এখনই কোন উপসংহারে পৌঁছতে চাচ্ছেন না কেউ কেউ । বিবিসি বাংলা

আমেরিকার পাবলিক ইউনিভার্সিটি সিস্টেমের শিক্ষক ড. সাঈদ ইফতেখার আহমেদ এই মুহুর্তে খালেদা জিয়ার ‘খুব ভালো কোন’ রাজনৈতিক ভবিষ্যত দেখতে পাচ্ছেন না। কারন তাঁকে মুক্ত করার জন্য বিএনপির তরফ থেকে কোন কার্যকর রাজনৈতিক চাপ বা আন্দোলন দেখেননি তিনি ।

অন্যদিকে সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ বেগম জিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে ততটা চিন্তিত নন । তিনি মনে করেন ৭৫ পরবর্তী আওয়ামী লীগের অবস্থা এর চেয়েও করুণ ছিলো।

কিন্তু খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক জীবনের ভুলগুলো কী? – এমন প্রশ্নে মাহফুজ উল্লাহ বলেন, ১৯৯৬ সালে যখন আওয়ামী লীগ নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি তুলেছিলো, তখন খালেদা জিয়ার উচিত ছিল সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে আগাম নির্বাচন দেয়া। এতে করে বিএনপি আরো বেশি জনপ্রিয়তা নিয়ে ক্ষমতায় ফিরে আসতো বলে তিনি মনে করেন।

মাহফুজ উল্লাহর দৃষ্টিতে ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত খালেদা জিয়ার সরকারের কিছু দুর্বলতা ছিল। তিনি বলেন, “এই সময়টিতে কিছু কিছু দুষ্টু লোক শাসন পদ্ধতিতে ঢুকে কিছু কিছু কাজকর্ম করেছে যেটার দায় গিয়ে তাঁর ওপর পড়েছে। বিষয়টা তাই হয়। সে সময় যদি তিনি সরকারকে সুশাসনের পথে আরো আনতে পারতেন দৃঢ়তার সঙ্গে, তাহলে পরবর্তী পর্যায়ে যে ঘটনাগুলো ঘটেছে, সেগুলো ঐভাবে ঘটতো না।”

অন্য অনেক রাজনীতিবিদের মতো খালেদা জিয়ার সফলতা বা অবদান যেমন রয়েছে, তেমনি তিনি বিতর্ক বা ভুলের ঊর্ধ্বে নন বলে মনে করেন অনেক পর্যবেক্ষক। তবে এমন কিছু ভুল তিনি করেছিলেন যেগুলোর মাশুল তাঁর দল বিএনপি এখনও দিচ্ছে অনেকের ধারণা।

তবে খালেদা জিয়ার সবচেয়ে বড় ভুলগুলো, তা নিয়ে বিশ্লেষকদের মধ্যেও মতভেদ আছে।
রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক ও লেখক মহিউদ্দিন আহমদ মনে করেন, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর তারেক রহমানকে অতি দ্রুততার সাথে দলের শীর্ষ পর্যায়ে নিয়ে আসা এবং ২১শে অগাস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার বিষয়টি বিএনপির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকার সময় দলের সিনিয়র অনেক নেতার সাথে খালেদা জিয়ার দূরত্ব তৈরি হয়েছিলো। তারই একটি ফলাফল হিসেবে রাষ্ট্রপতির পদ থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে।

ক্ষমতার মেয়াদের একেবারে শেষের দিকে দল ছেড়ে গিয়েছিলেন অলি আহমদ, যিনি এক সময় খালেদা জিয়াকে রাজনীতিতে আনার জন্য ভূমিকা রেখেছিলেন।

এছাড়া ২০০৭ সালে সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় আসার পর খালেদা জিয়া গ্রেফতার হবার আগে মহাসচিব আব্দুল মান্নান ভুঁইয়াকে দল থেকে বহিষ্কার করেন।

খালেদা জিয়া যখন রাজনৈতিকভাবে নানান চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছিলেন, ওই একই সময়ে তাঁর পারিবারিক ট্র্যাজেডিও ঘটে ২০১৫ সালে ছোট ছেলে আরাফাত রহমানের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে ।

২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি নির্বাচন বর্জনের পর বিএনপি রাজনৈতিকভাবে অনেকটা চাপে পড়ে যায়। খালেদা জিয়ার সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এসে হাজির হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে করা দুর্নীতির মামলা।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে গত এক বছর ধরে তিনি কারাগারে। তাঁর কারাবাস এতোটা দীর্ঘ হবে সেটি অনেকেই ভাবেননি। দলের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ৭৩ বছর বয়সী খালেদা জিয়ার শরীরও ভালো যাচ্ছে না।

খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখেই সর্বশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছে বিএনপি।
বিএনপি নেত্রীর রাজনৈতিক ভবিষ্যত নিয়ে অনেকে নানা রকম সমীকরণ করছেন। তবে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কী হবে, সেটি নিয়ে এখনই কোন উপসংহারে পৌঁছতে চান না সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ।

তবে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কী হবে – সেটি এখন বেশ অনিশ্চয়তায় রয়েছে বলে মনে করেন সাঈদ ইফতেখার আহমেদ।

তিনি মনে করেন, খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কোন দিকে যাবে তার অনেকটাই নির্ভর করছে বিএনপি রাজনৈতিক দল হিসেবে সংগঠিত হয়ে সরকারের উপর কতটা চাপ তৈরি করতে পারবে তার উপর।
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে যদি বিএনপি কোন আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারে না, সেক্ষেত্রে খালেদা জিয়ার কোন রাজনৈতিক ভবিষ্যত নেই বলে উল্লেখ করেন তিনি । সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*